চুয়াডাঙ্গায় ইউএনওর নিরাপত্তায় নিয়োজিত আনসার সদস্যের মরদেহ উদ্ধার

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা পরিষদের আনসার ব্যারাকের শৌচাগারে জামাল উদ্দিন (৫৬) নামে এক আনসার সদস্যকে অচেতন অবস্থায় পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) রাতে তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

জামাল উদ্দিন কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার পান্টি ইউনিয়নের ঠাকুরবাড়িয়া গ্রামের গঞ্জের আলীর ছেলে। তিনি চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফাতেমা-তুজ-জোহরার নিরাপত্তায় নিয়োজিত ছিলেন।উদ্ধারকারী আনসার সদস্য সাইদুর রহমান বলেন, ‘জামাল উদ্দিনসহ আমরা কয়েকজন সদস্য ডিউটিতে ছিলাম। এর মধ্যে যেকোনও একসময় জামাল উদ্দিন আনসার ব্যারাকের শৌচাগারে যান। দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলে আমরা খোঁজাখুঁজি করতে থাকি। পরে আনসার ব্যারাকের শৌচাগারের মধ্যে জামাল উদ্দিনকে অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখি। দ্রুত উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।’ 

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আফরিনা ইসলাম বলেন, ‘পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর জামাল উদ্দিনকে মৃত ঘোষণা করা হয়েছে। হাসপাতালে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, স্ট্রোকজনিত কারণে তার মৃত্যু হতে পারে।’

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ সেকেন্দার আলি বলেন, ‘সদর উপজেলার আনসার ব্যারাকের শৌচাগার থেকে এক আনসার সদস্যের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তার মরদেহ হাসপাতালে রাখা আছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্টের পরই মৃত্যুর মূল কারণ জানা যাবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *