সিলেটে ৬ কেন্দ্রের সামনে আগুন, ত্রিমুখী সংঘর্ষে আহত ১৫ 

সিলেট: রাত পোহালেই ভোট উৎসব। ভোটের আগের রাতে সিলেটে আওয়ামী লীগ-বিএনপি ও পুলিশ ত্রিমুখী সংঘর্ষ ঘটনা ঘটেছে।

সেই সঙ্গে ছয়টি ভোটকেন্দ্রের সামনে অগ্নিসংযোগ ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়েছে দুর্বৃত্তরা।  

শনিবার (৬ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৭টার দিকে সিলেটের সীমান্তবর্তী কানাইঘাট উপজেলার সুরইঘাট বাজারে আওয়ামী লীগ-বিএনপি ও পুলিশের মধ্যকার ত্রিমুখী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

search

সিলেটে ৬ কেন্দ্রের সামনে আগুন, ত্রিমুখী সংঘর্ষে আহত ১৫ 

সিনিয়র করেসপন্ডেন্টআপডেট: ০৪২৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৭, ২০২৪

সিলেটে ৬ কেন্দ্রের সামনে আগুন, ত্রিমুখী সংঘর্ষে আহত ১৫ 

সিলেট: রাত পোহালেই ভোট উৎসব। ভোটের আগের রাতে সিলেটে আওয়ামী লীগ-বিএনপি ও পুলিশ ত্রিমুখী সংঘর্ষ ঘটনা ঘটেছে।সেই সঙ্গে ছয়টি ভোটকেন্দ্রের সামনে অগ্নিসংযোগ ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়েছে দুর্বৃত্তরা।  

শনিবার (৬ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৭টার দিকে সিলেটের সীমান্তবর্তী কানাইঘাট উপজেলার সুরইঘাট বাজারে আওয়ামী লীগ-বিএনপি ও পুলিশের মধ্যকার ত্রিমুখী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।এতে পুলিশসহ অন্তত ১৫ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।  

স্থানীয় সূত্র জানায়, ঘটনার সময় বিএনপির নেতা-কর্মীরা ভোট বর্জনের আহ্বান জানিয়ে সুরইঘাট বাজারে মশাল মিছিল বের করেন।মিছিলে বাধা দিলে বিএনপি নেতা-কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করেন।  

এক পর্যায়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা লাঠিসোঁটা নিয়ে বিএনপি নেতা-কর্মীদের হামলা করলে উভয়পক্ষে সংঘর্ষ বাধে।

এ সময় পুলিশও ধাওয়া করলে ত্রিমুখী সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে কানাইঘাট থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সঞ্জিত কুমার রায়সহ তিন পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হন।

এদিকে, সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার সিলাম, সদর উপজেলার টুকেরবাজার, টুলটিকর, নগরের টিবিগেট, ইলেকট্রিক সাপ্লাইসহ ছয়টি স্থানে ভোটকেন্দ্রের সামনে অগ্নিসংযোগ ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে দুর্বৃত্তরা।  

সেসব এলাকার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ভোট কেন্দ্রগুলোর সামনে হঠাৎ করে দুর্বৃত্তরা এসে টায়ার, কাঠে আগুন ধরিয়ে এবং একাধিক ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। এতে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। কতিপয় যুবকরা আগুন দেওয়ার সময় সরকারবিরোধী নানা স্লোগান দিতে থাকেন।

সিলেটের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক শেখ রাসেল হাসান গণমাধ্যমকে জানান, সিলেট সদর উপজেলার সিরাজুল ইসলাম আলিম মাদরাসা ও হাজী আবদুস সাত্তার উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের সামনে টায়ার জ্বালিয়ে দুর্বৃত্তরা আগুন দেওয়ার চেষ্টা করে। তবে এতে ভোটকেন্দ্রের কোনো ক্ষতি হয়নি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী জেলাজুড়ে কড়া নজরদারি রাখছে। শান্তিপূর্ণভাবে ভোট শেষ করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। তবে ককটেল নয়, দুর্বৃত্তরা পটকার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে।  

এ বিষয়ে সিলেট মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (উত্তর) মো. আজবাহার আলী শেখ বলেন, সিলেট নগর ও সদর উপজেলার কয়েকটি স্থানে ভোট কেন্দ্রের সামনে অগ্নিসংযোগ ও বিস্ফোরণ ঘটিয়ে নাশকতা সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে দুর্বৃত্তরা। তবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কড়া নজরদারি রয়েছে।

এছাড়া নির্বাচনের আগের রাতে সিলেট-সুনামগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কে শান্তিগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নে পিকআপভ্যান ভাঙচুর করেছে নির্বাচনবিরোধী দুর্বৃত্তরা।  

রাত ৮টার দিকে স্থানীয় পাগলা বাজার সংলগ্ন জামিয়া ইসলামিয়া পাগলা মাদরাসার সামনে এ ঘটনা ঘটে। তবে, কারা ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের চিহ্নিত করা যায়নি 

চালক মোবারক হোসেন জানান, পিকআপভ্যান চালিয়ে দিরাই থেকে তিনি সিলেটের উদ্দেশে যাচ্ছিলেন। ঘটনাস্থলে পৌঁছালে আগে থেকে জড়ো হওয়া ১৫-২০ জন লোক গাড়ি ভাঙচুর করেন।  

শান্তিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজি মোক্তাদির হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগেই হামলাকারীরা পালিয়ে গেছেন। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *